যে কোন সমস্যায় প্রশ্ন করে সমাধান নিন এবং অন্যের প্রশ্নের উত্তর দিয়ে উপার্জন করুন BDHelper24.Com থেকে।

সালাম দেওয়ার সঠিক নিয়ম , সঠিক আদব , কখন , কোথায় সালাম দেওয়া যাবে , একজনকে কতবার সালাম দেওয়া যায় । সালামের বিষয়ে যাবতীয় সবকিছুই একটি পোস্ট থেকে জেনে নিই ।

আসসালামুয়ালাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ ! বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম । সুপ্রিয় পাঠক , সালাম সম্পর্কে জাবতীয় প্রায় সব কিছুই এই পোস্টটিতে তুলে ধরার চেষ্টা করবো ইনশাআল্লাহ। নিজের ব্যাখ্যা ব্যাতী রেখে সরাসরি হাদিস শরীফের ব্যাখ্যা থেকে সকল বিষয়ে অবগত হবো ইনশাআল্লাহ ! সালাম বিষয়ে ইমরান ইবনে হুসাইন (রা.) থেকে বর্ণিত,হুজুর ( সা.) এর দরবারে এক লোক এসে ‘আসসালামু আলাইকুম’ বলে বসে পড়ল। হুজুর ( সা.) তার উত্তর দিয়ে বললেন, সে দশটি নেকি পেয়েছে। তারপর আরেকজন এসে ‘আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ’ বলে বসে গেল। হুজুর ( সা.) তার উত্তর দিয়ে বললেন, সে বিশটি নেকি পেয়েছে। অতঃপর আরেকজন লোক এসে ‘আসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু’ পর্যন্ত বলে বসে গেল। রাসূল(সা.) তার উত্তর দিয়ে বললেন, সে ত্রিশ নেকি পেয়েছে। –আবু দাউদ ৫১৯৫, তিরমিজি ২৬৯০ সালামের উচ্চারণে আমরা সচরাচর যে ভুলগুলো করে থাকি তা হল- স্লামালাইকুম, সালামালাইকুম, আস্লামালাইকুম, আস্লাআলাইকুম, সেলামালাইকুম, ইস্লামালাইকুম, অয়ালাইকুম ইত্যাদি বলা। অথচ, এই শব্দগুলো বলার কারণে সালামের অর্থ ঠিক থাকেনা। ‘আসসালামু আলাইকুম’ ‘ওয়া আ’লাইকুমুস সালাম’ সহীহ উচ্চারণের কাছাকাছি। অন্য ধর্মের মানুষকে সালাম দেয়া নিয়ে রাসূলুল্লাহ ﷺ স্পষ্ট ভাষায় বলেছেন,لا تبدءوا اليهود ولا النصارى بالسلام ‘তোমরা ইয়াহূদী ও খৃষ্টানদের প্রথমে সালাম দেবে না।’ (মুসলিম ২১৬৭) তবে কোনো অমুসলিম আগে সালাম দিয়ে ফেললে উত্তরে ‘অয়া আলাইকুম’ বলবে। কেননা, রাসূলুল্লাহ ﷺ বলেন, ﺇﺫﺍ ﺳﻠﻢ ﻋﻠﻴﻜﻢ ﺃﻫﻞ ﺍﻟﻜﺘﺎﺏﻓﻘﻮﻟﻮﺍ ﻭﻋﻠﻴﻜﻢ ‘আহলে কিতাবগণ তোমাদের সালাম দিলে, তার উত্তরে তোমরা শুধু ‘অয়া আলাইকুম’ বলবে।’ (বুখারি ৬২৫৮ মুসলিম ২১৬৭) সালাম (আরবি: ٱلسَّلَامُ عَلَيْكُمْ وَرَحْمَةُ ٱللَّٰهِ وَبَرَكَاتُهُ‎‎) একটি আরবি শব্দ। এর অর্থ হচ্ছে শান্তি, প্রশান্তি কল্যাণ, দোয়া, আরাম, আনন্দ, তৃপ্তি।[১] সালাম একটি সম্মানজনক, অভ্যর্থনামূলক, অভিনন্দনজ্ঞাপক, শান্তিময় উচ্চমর্যাদা সম্পন্ন পরিপূর্ণ ইসলামী অভিবাদন। এটি উল্লেখ্য যে, ‘আস্‌-সালাম’ আল্লাহর সুন্দর নামসমূহের মধ্যে একটি অন্যতম নাম[২] এবং জান্নাতের নাম সমূহের মধ্যে একটি জান্নাতের নাম।সালাম আমাদের জীবনে অনেক শান্তি ও সুখ আনে।[৩] মুসলিমরা বিশ্বাস করে যে আল্লাহ সর্বপ্রথমে প্রথম মানব আদমকে সালামের শিক্ষা দেন।[৪] হাদিসে আছে, আবু হুরায়রাথেকে বর্ণিত হয়েছে রাছূলুল্লাহ মুহাম্মাদ(সাঃ) বলেন আল্লাহ আদম (আঃ)কে সৃষ্টি করে বলেন, যাও ফেরেশতাদেরদলকে সালাম দাও এবং তোমার সালামের কি উত্তর দেয় মন দিয়ে শুন। এটিই হবে তোমার আর তোমার সন্তানদের সালাম। সে অনুযায়ী আদম গিয়ে বলেন, আস্‌সালামু আলাইকুম(অৰ্থ- ‘আপনাদের উপর শান্তি বর্ষিত হোক’)। ফেরেশতারা উত্তর দেন,ওয়া আলাইকুমুস সালাম ওয়া রহমাতুল্লাহি (অৰ্থঃ ‘আপনাদের উপর শান্তি এবং আল্লাহ রহমত বর্ষিত হোক’)। ফেরেশতারা রাহমাতুল্লাহ বৃদ্ধি করেন।[৫] সালাম দেওয়া সুন্নত। উত্তর দেওয়া ওয়াজিব অন্যান্য নবীদের জীবনে সালামের প্রচলন সম্পাদনা ইব্রাহিম(আঃ) এর ক্ষেত্রে, কুরআনে পাওয়া যায়- “ এবং অবশ্যই আমার ফেরেশতারা সুসংবাদ নিয়ে ইব্রাহীমের নিকট এসেছিল। তারা সালাম জানায়। তিনিও ‘সালাম’ দেন।[৬] ” অন্যের গৃহে সালাম না দিয়ে প্রবেশ করা নিষেধ সম্পাদনা কুরআন-এ আল্লাহ নির্দেশ দিয়েছেন যে, “ হে মুমিনগণ, তোমরা নিজেদের গৃহ ব্যতীত অন্য গৃহে প্রবেশ করো না, যে পর্যন্ত আলাপ পরিচয় না কর এবং গৃহবাসীদেরকে সালাম না কর। এটাই তোমাদের জন্য উত্তম। যাতে তোমরা স্মরণ রাখো। [৭] ” হাদিসে অন্যের গৃহে গিয়ে তিনবার সালাম দিতে বলা হয়েছে এবং অনুমতি প্রার্থনা করতে বলা হয়েছে। অনুমতি নাদিলে চলে আসতে বলা হয়েছে।[৮] সালামের বিধান সম্পাদনা সালাম দেয়া সুন্নত। আল্লাহ্ তা‘আলা বলেন, [৯] يَٰٓأَيُّهَا ٱلَّذِينَ ءَامَنُواْ لَا تَدۡخُلُواْ بُيُوتًا غَيۡرَ بُيُوتِكُمۡ حَتَّىٰ تَسۡتَأۡنِسُواْ وَتُسَلِّمُواْ عَلَىٰٓ أَهۡلِهَاۚ ذَٰلِكُمۡ خَيۡرٞ لَّكُمۡ لَعَلَّكُمۡ تَذَكَّرُونَ “হে মুমিনগণ, তোমরা নিজদের গৃহ ছাড়া অন্য কারও গৃহে প্রশে করো না, যতক্ষণ না তোমরা অনুমতি নেবে এবং গৃহবাসীদেরকে সালাম দেবে”। [১০] আবু হুরাইরা রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু’ হতে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম’ বলেন, «لا تدخلوا الجنة حتى تؤمنوا ولا تؤمنوا حتى تحابوا أو لا أدلكم على شيء إذا فعلتموه تحاببتم؟ أفشوا السلام بينكم» رواه مسلم. “তোমরা ততক্ষণ পর্যন্ত জান্নাতে প্রবেশ করবে না, যতক্ষণ পর্যন্ত তোমরা পরিপূর্ণ ঈমানদার হতে পারবে না। আর ততক্ষণ পর্যন্ত তোমরা পরিপূর্ণ ঈমানদার হবে না, যতক্ষণ পর্যন্ত তুমি তোমরা একে অপরকে ভালবাসবে না, আমি কি তোমাদেরকে এমন একটি জিনিস বাতলে দেব, যা করলে তোমরা পরস্পর পরস্পরকে ভালো বাসবে? তারপর তিনি বললেন, তোমারা বেশি বেশি করে স

⌛ 4 টি উত্তর:

https://prolyads.com/?mref=46

যে কোন Mobile Number এর তথ্য জানুন অথবা আপনার জানা নাম্বার গুলোর তথ্য জমা দিয়ে ফ্রি উপার্জন করুন BDTracer.Com থেকে। এছাড়া একাউন্ট করলেই পাবেন ৫০ টাকা এবং প্রতি রেফারে পাবেন ১০ টাকা করে। (বিস্তারিত)

"
ধর্ম ও আধ্যাত্মিক বিশ্বাস" বিভাগে "" প্রশ্নটি যুক্ত করেছেন 1 year পূর্বে

  1. Muhammad AIM উত্তর দিয়েছেন

    প্রথমে আমার সালাম নিবেন : আছ্ছালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ্ । বিষয়টি এভাবে অবগত করানোর জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ । ধন্যবাদ ।

  2. yamin mia উত্তর দিয়েছেন

    R8

  3. abdus salam উত্তর দিয়েছেন
  4. abdus salam উত্তর দিয়েছেন

    https://prolyads.com/?mref=46

উত্তর বা মন্তব্য করার জন্য প্রথমে আপনার বিডিহেল্পার২৪ একাউন্ট এ প্রবেশ করুন
   
সমস্ত বিভাগ

বিভাগের নামঃ সাধারণ দেখুন
বিভাগের নামঃ আইকিউ দেখুন
বিভাগের নামঃ অ্যান্ড্রয়েড দেখুন
বিভাগের নামঃ আইন দেখুন
বিভাগের নামঃ আউটসোর্সিং দেখুন
বিভাগের নামঃ ক্যারিয়ার দেখুন
বিভাগের নামঃ কম্পিউটার দেখুন
বিভাগের নামঃ তথ্য-প্রযুক্তি দেখুন
বিভাগের নামঃ ইন্টারনেট দেখুন
বিভাগের নামঃ নেটওয়ার্ক দেখুন
বিভাগের নামঃ বিজ্ঞান ও প্রকৌশল দেখুন
বিভাগের নামঃ স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা দেখুন
বিভাগের নামঃ রূপচর্চা দেখুন
বিভাগের নামঃ ধর্ম ও আধ্যাত্মিক বিশ্বাস দেখুন
বিভাগের নামঃ স্বপ্নের ব্যাখ্যা দেখুন
বিভাগের নামঃ খেলা দেখুন
বিভাগের নামঃ প্রেম-ভালোবাসা দেখুন
বিভাগের নামঃ শিক্ষা+শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দেখুন
বিভাগের নামঃ খাদ্য ও পানীয় দেখুন
বিভাগের নামঃ বিনোদন ও মিডিয়া দেখুন
বিভাগের নামঃ রান্না দেখুন
বিভাগের নামঃ নিত্য ঝুট ঝামেলা দেখুন
বিভাগের নামঃ কৃষি দেখুন
বিভাগের নামঃ বাংলাদেশ দেখুন
বিভাগের নামঃ বিশ্ব দেখুন
বিভাগের নামঃ অন্যান্য দেখুন
বিভাগের নামঃ HTML দেখুন
বিভাগের নামঃ javaScript দেখুন
বিভাগের নামঃ PHP দেখুন
বিভাগের নামঃ Programming দেখুন
বিভাগের নামঃ Wordpress দেখুন